নিশ সিলেকশন করুন সহজ কিছু উপায়ে ও বুদ্ধি খাটিয়ে

নিশ সিলেকশন পৃথিবীর অন্যতম কঠিন কাজের ভিতর একটি। আর তা যদি হয় এমাজন এফিলিয়েট তাহলেতো কথাই নেই। আমাদের মতে আপনি যদি এই নিশ সিলেকশনে একবার ভুল করেন তাহলে আপনার সফলতা অনেক দূর পিছিয়ে পড়বে। যদিও এই বিষয়টা নিয়ে আমাদের দেশের গুরুরা তেমন কোন পরামর্শ দেন না। কারন তারা জানেন এটা একদিনে তৈরী হবে না। তবে আশার কথা হলো, এফিলিয়েট বিশেষজ্ঞরা মনে করেন এমাজনে এখনো অনেক নিশই আনটাচ রয়ে গেছে। আপনি চাইলে সেগুলো নিয়ে কাজ করতে পারেন। তবে সেই আনচাট নিশ খুজে বের করতে হলে আপনার দরকার হবে অভিজ্ঞতা, সময় এবং শ্রম। সেই সাথে দরকার হবে আপনার গভিরে চিন্তা করার যোগ্যতা। চলুন তাহলে আজ দেখে নেই কিভাবে প্রফিটাবেল নিশ খুজে বের করা যায়।

এমাজন কমিশন রেট

প্রথমেই আমরা এমাজনের নতুন কশিশন রেট লিষ্ট দেখে নেই যাতে করে আমাদের নিশ খুজে পেতে আরো সহজ হয়।

Associates Program Standard Fees Schedule jobayer academy
Snap by: https://affiliate-program.amazon.com/help/node/topic/GRXPHT8U84RAYDXZ

নিশ সিলেকশন করার উপায়

হুট করে নিশ সিলেকশন করে ফেলবেন এমন চিন্তা করা বোকামি। আমাদের এমন নিশ খুজে বের করতে হবে যেখানে অনেক কিওয়ার্ড খুজে পাওয়া যায় এবং যে কিওয়ার্ড গুলোর সার্চ ভলিউম (২০০+) আছে। সব শেষে দেখেতে হবে তারা লো কম্পিটিটিভ কিনা। যদি এমন পাওয়া যায় তাহলে সে নিশটা নিয়ে আমরা আগাতে পারবো। এমনও হতে পারে একটা নিশ খুজে বের করতে আপনাকে দিনের পর দিন সময় দিতে হচ্ছে। নিশ পছন্দ করলেন অথচ কি নিয়ে লিখবেন সেটা খুজে পেলেন না। তাহলে বিষয়টা হলো, সে নিশটা বাদ দিতে হবে। তবে কথা হলো, যে কোন নিশ নিয়েই কাজ করা সম্ভভ, যদি আপনার হাতে সে পরিমান রিসোর্স বা বাজেট থাকে। যেহেতু আমাদের প্রথম দিকে বাজেট বা রিসোর্স তেমন থাকে না তাই আমাদের সঠিক ভাবে এনালাইসিসের বিকল্প নেই।

চলুন তাহলে জেনে নেয়া যাক কি কি ক্রাইটেরিয়া মিলে গেলে আমরা সেই নিশটি নিয়ে সামনে আগাতে পারবো।

১। প্রথমে আমাদের ব্রেইনকে কাজে লাগিয়ে আপনার মনের ভিতর লুকিয়ে থাকা পছন্দকে খুজে বের করতে হবে। এটাও হুট করে বের হবে না। কারন আমাদের তো পাগল মন। যাই হোক, নিরবে কোথাও বসুন, চোখ বন্ধ করেন, এবার ভাবতে থাকুন আপনার পছন্দের তালিকায় কি কি আছে। যা যা মাথায় আসবে খাতায় নোট করে রাখুন।

যেমন- বই পড়তে ভালো লাগে, ঘুরতে ভালো লাগে, সমুদ্র দেখতে ভালো লাগে, রেষ্ট্রুরেন্টে খেতে ভালো লাগে, চাইনিজ ফুড ভালো লাগে, রান্না করতে ভালো লাগে, কেনাকাটা ভালো লাগে, ডেটিং করতে ভালো লাগে, সন্তান লালন পালন করতে ভালো লাগে, রান্ন ঘরের সরঞ্জাম ভালো লাগে, গোসল করতে ভালো লাগে, সুইমিং পুল ভালো লাগে, বিমানে চড়তে ভালো লাগে ইত্যাদি ইত্যাদি।

বলতে পারেন ভালো লাগার সাথে নিশ সিলেকশন এর কি সম্পর্ক? আমাদের কথা হলো, যদি আপনার ওয়েব সাইটের টপিক আপনার ভালো লাগার সাথে মিলে না যায় তাহলে সেই ওয়েব সাইট কিছুদিন পরে চালাতে আর ভালো লাগবে না। আর যদি সেটা আপনার পছন্দের হয় তাহলে বছরের পর বছর আপনি সেটা নিয়ে কাজ করতে পারবেন তাতে কোন বোর ফিল হবে না।

২। আপনার পছন্দের নিশ পেয়ে গেলে এমাজনে যেতে হবে, পছন্দের ক্যাটাগরি খুজে বের করতে হবে। প্রডাক্ট, ক্যাটাগরি, ফিয়েচার, ব্রান্ড, প্রাইজ রেঞ্জ দেখে best, to buy, reviews, review ইত্যাদি যুক্ত করে নিজের মত করে কিওয়ার্ড তৈরী করতে হবে।

যেমন- Best sewing machine, best brother sewing machine, sewing machine to buy, sewing machine under 200$, 2343 XL sewing machine review ইত্যাদি।

কিওয়ার্ডগুলো নিয়ে এবার গুগলে সার্চ দিয়ে দেখতে হবে গুগল রিলেটেড কি কি কিওয়ার্ড আমাদের দেখায়, সেগুলা লিষ্ট করে ফেলতে হবে। গুগল সাজেশন ও রিলেটেড এ নতুন কোন কিওয়ার্ড খুজে পেলে সেটা লিষ্ট করে ফেলুন।

google suggestion

৩। Ahrefs টুলস এ আপনার পছন্দ মত কিছু কিওয়ার্ড নিয়ে (১০-১০০টি+) কিওয়ার্ড এক্সপ্লোরারে সার্চ করবেন। বাম পাশের কিওয়ার্ড আইডিয়াতে ক্লিক করবেন। ফিল্টার করবেন কেডি মেক্সিমাম ৫, মিনিমাম সার্চ ভলিউম ২০০। ভালো ও অর্থবোধক কিওয়ার্ডগুলো খুজে বের করে লিষ্ট করে ফেলুন।

৪। কম্পিটেটরদের নিশ সাইটগুলো চেক করুন। বোঝার চেষ্টা করুন কি কি কিওয়ার্ড নিয়ে তারা কাজ করেছে। কিম্পিটেটরদের যদি ঘাটঘাটি করবেন আপনার অভিজ্ঞতা ততো বাড়বে। কম্পিটেটররা কেমন এডভান্স, কিংবা কিভাবে আর্টিকেল সাজিয়েছে, কোথায় কোথায় ব্যকলিংক করছে ইত্যাদি। কম্পিটেটরদের সাইট থেকে চাইলে তাদের কিওয়ার্ডগুলো কপি করে লিষ্ট করতে পারেন।

৫। Soovle তে কিওয়ার্ড লিখে সার্চ করুন, দেখুন বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিনে কি কি সাজেশন দেয়। সেখান থেকে কপি করে লিষ্ট করুন। সার্চের আগে পড়ে ( _ ) ব্যবহার করে দেখুন লং টেইল কোন কিওয়ার্ড পাওয়া যায় কিনা।

যেমন- _Best sewing machine, Best sewing machine_

যদি এভাবে কাজ করে আপনি প্রতি ১০০ কিওয়ার্ড নির্বচান করার জন্য কমপক্ষে ২০০-৫০০টি কিওয়ার্ড লিস্ট তৈরী করতে পারেন তাহলে বুঝে নিবেন ঐ নিশটা নিয়ে আপনি ফারদার এনালাইসিস করতে পারবেন। এই লিষ্ট থেকেই হয়তো ভালো কিওয়ার্ড গুলো খুজে বের করতে পারবেন। যদি কিওয়ার্ড খুজে বের করা সম্ভব হয় তাহলে আমরা সেই নিশটা নিয়ে কাজ শুরু করতে পারবো। তা না হলে আবার আমাদের অন্য নিশ নিয়ে এভাবে লিষ্ট তৈরী করে দেখতে হবে।

আবারো বলছি, যতো ঘাটবেন ততো আপনার জন্য মঙ্গল। এতে অভিজ্ঞতা ও ব্রেইনের চিন্তা করার ক্ষমতা বাড়বে। যাই হোক, হাতে সময় থাকলে আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি ঘুরে আসতে পারেন। এবং জয়েন করতে পারেন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে

এমন তথ্যবহুল আর্টিকেল পড়বে আমাদের ব্লগ সেকশনটা ঘুরে দেখতে পারেন।

Leave a Comment